১৮ই জুলাই, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ | ৩রা শ্রাবণ, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ |
  • প্রচ্ছদ
  • জাতীয় >> টপ নিউজ
  • ১২ সিনেটরের উদ্দেশ্যে কংগ্রেস অব বাংলাদেশী আমেরিকানের চিঠি
  • ১২ সিনেটরের উদ্দেশ্যে কংগ্রেস অব বাংলাদেশী আমেরিকানের চিঠি

    দৈনিক আমার ফেনী

    বিশেষ প্রতিনিধি
    সম্প্রতি বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রীকে লেখা ড. মোহাম্মদ ইউনূস ইস্যুতে লেখা চিঠির বিপরীতে চিঠি দিয়েছেন কংগ্রেস অব বাংলাদেশী আমেরিকানরা। রিচার্ড জে ডার্বিনকে উদ্দেশ্য করে লেখা চিঠিতে তারা বলেন, আমরা, নিম্নস্বাক্ষর করা বাংলাদেশী আমেরিকানরা, ২২ জানুয়ারী, ২০২৪ তারিখে অন্য এগারোজন সিনেটরের সাথে আপনার যে চিঠি বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে লেখা হয়েছে সে বিষয়ে আমাদের হতাশা প্রকাশ করে লিখছি।
    চিঠিটি আপনারা একজন বাংলাদেশী নাগরিক ডক্টর মুহাম্মদ ইউনূসের মামলার বিষয়ে উদ্বেগ প্রকাশ করেছেন, যিনি তার ব্যবসা প্রতিষ্ঠানের কর্মচারীদের দ্বারা তার বিরুদ্ধে আনা অভিযোগের সম্মুখীন হয়েছেন। যারা দাবি করেছেন যে তিনি দেশের শ্রম আইনের অধীনে তাদের কর্মসংস্থান অধিকার লঙ্ঘন করেছেন। একটি স্বাধীন দেশের প্রধানমন্ত্রীর অফিসের জন্য চিঠিতে আরও সম্মান দাবি করে। কারণ এটি তাকে অভিবাদন দিয়ে শুরু না করে একটি ভিত্তিহীন অভিযোগ করাটা সার্বভৌম সরকারের প্রধানকে সম্বোধন করার ন্যূনতম শিষ্টাচারের বিরুদ্ধে যায়।
    চিঠিটি একটি বিদেশী দেশে চলমান বিচারিক মামলার বিষয়ে মন্তব্য করার আগে আরও বোঝার প্রয়োজনীয়তার কথা নির্দেশ করে। কারণ এর ভাষাকে যুক্তির পরিবর্তে ক্রোধ দ্বারা প্রভাবিত বলে মনে হয়েছে। আমরা উদ্বিগ্ন যে দেশের আইন প্রণেতারা দেওয়ানি আদালতের বিষয়ে হস্তক্ষেপ করার চেষ্টা করছেন এবং আইন আদালতকে সম্মান করছেন না কিন্তু আদালতের রায়কে নিয়ে নানাভাবে বাহ্যিক প্রভাবের চেষ্টা করছেন।
    সিনেটরদের অবস্থানগত সমালোচনা করে চিঠিতে বলা হয়, আমরা আপনাকে এবং অন্যান্য সিনেটরদের গবেষণা করার জন্য এবং প্রধানমন্ত্রীর অফিসকে সম্মান করার জন্য অনুরোধ করছি। আমরা আপনাকে একজন শক্তিশালী কর্পোরেট প্রধান ডক্টর মুহাম্মদ ইউনূসের পক্ষ না নেওয়ার জন্য এবং তার পরিবর্তে দরিদ্র ও অসহায় সাধারণ কর্মচারী/শ্রমিকদের তাদের আইনি ও আর্থিক অধিকার থেকে বঞ্চিত সমর্থন করার জন্য উৎসাহিত করছি।
    দুর্ভাগ্যবশত, মার্কিন মূলধারার মিডিয়া, সিবিএস নিউজ, তাদের অনলাইন সংবাদে যা ভবিষ্যদ্বাণী করেছিল তার প্রতিফলন আপনাদের চিঠিতে আমরা প্রত্যক্ষ করি যখন কিনা তারা বলেছিল, ‘যেমন ইউনূস পশ্চিমের রাজনৈতিক অভিজাতদের সাথে ঘনিষ্ঠ যোগাযোগের জন্য পরিচিত, বিশেষ করে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে , অনেকে মনে করেন এই রায় যুক্তরাষ্ট্রের সাথে বাংলাদেশের সম্পর্কের ওপর নেতিবাচক প্রভাব ফেলতে পারে।
    চিঠিতে অনুরোধ করা হয় যে আপনি এবং অন্যান্য সিনেটররা ড. ইউনূসের বিরুদ্ধে আনা অভিযোগের সত্যতা যাচাই করুন, বাংলাদেশ সরকার নয়। প্রয়োজনে, আমরা আপনাকে আন্তর্জাতিক বিশেষজ্ঞ এবং আইনজীবীদের বাংলাদেশে পাঠানোর জন্য আইনি প্রক্রিয়ার মূল্যায়ন এবং ইউনূসের বিরুদ্ধে অভিযোগের সাথে জড়িত নথি পরীক্ষা করার জন্য অনুরোধ করছি। আমরা আপনাকে এই চিঠি থেকে আপনার নাম প্রত্যাহার করতে উৎসাহিত করি, যা আমরা মানহানিকর এবং অপ্রমাণিত তথ্যের ভিত্তিতে লেখা বলে বিবেচনা করি।
    চিঠিতে সাক্ষর করেছেন কংগ্রেস অব বাংলাদেশী মোহাম্মদ আলী সিদ্দিক, শামীম চৌধুরী, মি মঞ্জুর চৌধুরী, ড. প্রদীপ রঞ্জন কর সহ আরও ৩৪ আমেরিকান বাংলাদেশি।

    আরও পড়ুন

    মেধার অন্ধ অহংকারে অন্যকে অসম্মান করার অদম্য স্পৃহা থেকে বের হয়ে আসুন
    বিভ্রান্তিকর ও স্বার্থপরতার আন্দোলন!
    প্রধানমন্ত্রীর বক্তব্য বিকৃত করে বিশৃঙ্খলা সৃষ্টির অপচেষ্টা
    ফেনীতে মাদকদ্রব্য অবৈধ পাচার বিরোধী আন্তর্জাতিক দিবস পালিত
    মুক্তিযোদ্ধার নাতি-নাতনিরা পাবে না তো রাজাকারের নাতিরা পাবে?
    মেধা-কোটা বিতর্ক
    গ্রেফতার হলেন ব্যারিস্টার সুমনকে হত্যার হুমকিদাতা
    কোটা নিয়ে হাইকোর্টের রায়ে আপিল বিভাগের স্থিতাবস্থা জারি